Featured, Uncategorized, অনলাইনে আয়, অপারেটিং সিস্টেম, অশ্রেণীভুক্ত, অ্যানড্রয়েড, অ্যান্টিভাইরাস, অ্যাপ্লিকেশন, আইওএস, আরো, ই-কমার্স, ইন্টারনেট, ইন্টারভিউ ডেস্ক, উইকিপিডিয়া, উইন্ডোজ, উইন্ডোজ ফোন, এসইও, ওপেন সোর্স, ওয়ার্ডপ্রেস, ওয়েব ডিজাইন, ওয়েব ডেভেলপমেন্ট, ওয়েব রিভিউ, কম্পিউটার জগৎ, কীভাবে, গেইম রিভিউ, গ্যাজেট, গ্যাজেট রিভিউ, গ্রাফিক্স ডিজাইন, টিউটোরিয়াল, ডাউনলোড, ডোমেইন, নিরাপত্তা, পরামর্শ ও কৌশল, প্রতিবেদন, প্রোগ্রামিং কর্নার, প্রোডাক্ট রিভিউ, ফ্রীল্যান্সিং, বাংলা কম্পিউটিং, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির খবর, ব্রাউজার, ভিডিও এডিটিং, মোবাইল, মোবাইল রিভিউ, রিভিউ, সফটওয়্যার, সেরা তালিকা, সোশ্যাল মিডিয়া, হার্ডওয়্যার, হোস্টিং

মাইক্রোসফট ট্রুপ্লে এবং অ্যান্টি-চিট সিস্টেম কি এবং কিভাবে কাজ করে?

  • আপডেট সময় : সোমবার, ৩০ জুলাই, ২০১৮
  • ৪৫ বার পঠিত

আপনি কি জানেন যে মাইক্রোসফট শুধুমাত্র উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম, উইন্ডোজ ডিভাইস এবং এক্সবক্সই তৈরি করেনা, বরং মাইক্রোসফট একইসাথে একটি ভিডিও গেমস ডেভেলপার? হ্যা, মাইক্রোসফট ভিডিও গেমসও তৈরি করে থাকে। যেমন- সবসময়ের অন্যতম জনপ্রিয় একটি স্ট্র্যাটেজি গেম সিরিজ, এজ অফ এম্পায়ারস (Age Of Empires) মাইক্রোসফট স্টুডিওস এর তৈরি গেম সিরিজ। এছাড়া জনপ্রিয় রেসিং গেম Forza সিরিজের সবকয়টি গেমও মাইক্রোসফট স্টুডিওস এর তৈরি। তাই গেমিং জিনিসটির ওপরে সবসময়ই মাইক্রোসফট নজর দিয়ে থাকে। গেমিং এর জন্য উইন্ডোজ ১০ এর সেটিংসে আলাদা একটি গেমিং সেকশনই রেখেছে মাইক্রোসফট। আজকে মুলত এই গেমিং রিলেটেড আরেকটি বিষয় নিয়ে আলোচনা করবো যার নাম হচ্ছে মাইক্রোসফট ট্রুপ্লে অ্যান্টি-চিট সিস্টেম।

অ্যান্টি-চিট সিস্টেম কি?

আপনি যদি কখনো অনলাইন গেম খেলে থাকেন তাহলে আপনি জানেন যে অনলাইন গেমসগুলো যেমন- CSGO, PUBG, Fortnite ইত্যাদির সবথেকে বড় সমস্যা হচ্ছে হ্যাকার এবং চিটার যারা বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার ব্যাবহার করে গেমের মধ্যে সাধারন প্লেয়ারের তুলনায় অনেক বেশি অ্যাডভান্টেজ নিয়ে গেমটি জেতার চেষ্টা করে। হ্যাকার এবং চিটারদের জন্যই অনেক ভালো গেমাররাও অনলাইন গেমস ভালোভাবে খেলতে পারেনা।

উদাহরনস্বরূপ, হ্যাকাররা হতে পারে বিভিন্ন ধরনের সফটওয়্যার ব্যাবহার করে গেম খেলছে, যেখানে তার অস্ত্রটি বিপরীতপক্ষের প্লেয়ারের মাথায় অটোমেটিক টার্গেট করে যার ফলে সে খুব সহজেই বিপরীত টিমের সব প্লেয়ারকে মেরে ফেলতে পারে এবং গেমটি জিতে যেতে পারে। এই ধরনের আরও অনেক অনেক হ্যাকিং মেথড আছে যার ফলে অনেক প্লেয়ার বিভিন্ন ধরনের অবৈধ অ্যাডভান্টেজ নিয়ে থাকে, যা অন্যান্য লেজিট প্লেয়ারদের সমস্যার কারন হয়ে দাঁড়ায়। আপনি এই ধরনের অনলাইন গেমগুলো খেললে আপনার অবশ্যই এই চিটারদের বিরুদ্ধে কোন ধরনের একটি প্রোটেকশন দরকার হবে। অনলাইন গেমগুলোতে এই ধরনের হ্যাকার বা চিটারদেরকে আটকানো এবং ডিটেক্ট করে সার্ভার থেকে ব্যান করার লক্ষ্যেই মুলত অ্যান্টি-চিট সিস্টেম নামের এই টুলগুলো তৈরি করা হয়েছে এবং ব্যাবহার করা হয়।

অ্যান্টি-চিট সফটওয়্যার শুধুমাত্র একটিই আছে এমনটা নয়। অনলাইন গেমগুলোতে অনেকধরনের অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন ব্যাবহার করা হয়। যেমন- Easy-AntiCheat, Battle-Eye এবং Microsoft Trueplay। এর মধ্যে মাইক্রোসফট ট্রুপ্লে অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিনটি উইন্ডোজ ১০ এর ডিফল্ট অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন এবং এটি সব উইন্ডোজ ১০ পিসিতেই বিল্ট ইন থাকে, যদিও অধিকাংশ গেম ডেভেলপারই মাইক্রোসফটের অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন ব্যাবহার করেনা। আপনি হয়তো ভাবতে পারেন যে, গেম ডেভেলপার কেন গেমটির সাথেই তার জন্য একটি ডেডিকেটেড অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন তৈরি করেনা? এর কারন হচ্ছে, তাদেরকে সম্পূর্ণ গেমটির পেছনে এতটাই সময় এবং রিসোর্স ইউজ করতে হয়, এরপর আর তারা ডেডিকেটেড অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন তৈরি করার ঝামেলা নিতে চায় না। এর থেকে থার্ড পার্টি অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিনগুলোই গেমের সাথে ইন্টাগ্রেট করা ভালো এবং আরও বেশি রিলায়েবল।

মাইক্রোসফট ট্রুপ্লে কিভাবে কাজ করে?

মাইক্রোসফটের ফার্স্ট পার্টি অ্যান্টি-চিট সিস্টেম অন্যান্য জনপ্রিয় অ্যান্টি-চিট সিস্টেমের থেকে কিছুটা আলাদাভাবে কাজ করে এবং আরও একটু বেশি ইফেক্টিভ ওয়েতে কাজ করে। এখনকার সময়ের সবথেকে বেশি ব্যাবহার করা এবং সবথেকে বেশি জনপ্রিয় অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিনটি হচ্ছে Valve এর তৈরি অ্যান্টি-চিট সিস্টেম যা Steam এর সব গেমের ক্ষেত্রে কাজ করে। কিন্তু এটি অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন হিসেবে একেবারে বেস্ট সল্যুশন নয় কিন্তু! এর কারনেই PUBG এবং Fortnite এর মতো সবথেকে জনপ্রিয় এবং মোস্ট প্লেইড অনলাইন গেমগুলো এবং বিশেষ করে ব্যাটেল রয়াল ভিত্তিক গেমগুলো Valve এর অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন ব্যাবহার না করে Battle-Eye এবং Easy Anti-Cheat ব্যাবহার করে সেফটির কারনে।

আরো পড়ুন:  ডিএলএল ফাইল কি? কেন এতো গুরুত্বপূর্ণ? কখনো .dll ফাইল ডাউনলোড করবেন না!

তবে প্র্যাকটিক্যালি চিন্তা করলে মাইক্রোসফটের ট্রুপ্লে অ্যান্টি-চিট সিস্টেম এই সবগুলোর থেকেই অনেক বেটার। এর অন্যতম একটি কারন হচ্ছে, এটি যেহেতু উইন্ডোজ ১০ এর ডিফল্ট অ্যান্টি-চিট সিস্টেম, তাই এটি আপনার অপারেটিং সিস্টেমের একেবারে সিস্টেম-লেভেল থেকে কাজ করে, যেখানে অন্যান্য থার্ড পার্টি অ্যান্টি-চিট প্রোগ্রামগুলো আলাদা একেকটি স্ট্যান্ডঅ্যালোন অ্যাপ বা স্ট্যান্ডঅ্যালোন প্রোসেস হিসেবে ইন্টাগ্রেটেড গেমসগুলোর গেমপ্লেকে ট্র্যাক করে এবং সেই অনুযায়ী কাজ করে। ট্রুপ্লে যেহেতু সিস্টেম-লেভেল থেকে কাজ করে, তাই এটি অন্যান্য অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিনগুলোর তুলনায় আরও অনেক বেশি  ডেটা ইউজ করার পারমিশন এবং অ্যাক্সেস পায়, যেগুলো অন্যান্য থার্ড পার্টি অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিনগুলো পায় না।

এছাড়া মাইক্রোসফট ট্রুপ্লে ডিফল্টভাবে সব উইন্ডোজ ১০ পিসিতে সবসময়ের জন্যই অন করা থাকে যদিনা আপনি সেটিকে ম্যানুয়ালি ডিজেবল করে দেন। তাই এটি সবসময়ই আপনার পিসিতে রান করছে এবং আপনি আপনার পিসিতে কি কি ধরনের সফটওয়্যার এবং প্রোগ্রামস ইন্সটল করে রেখেছেন সেগুলোও ট্র্যাক করছে। এবং আপনি যে গেমগুলো খেলছেন সেগুলোর লোকাল গেম ফাইলসগুলোকেও এটি স্ক্যান করছে আপনি গেম খেলার সময়।  ট্রুপ্লে শুধুমাত্র যে আপনাকেই চিটারদের থেকে প্রোটেকশন দেবে তাই নয়, বরং চিটারদের জন্যও অনেকটা কঠিন হয়ে যাবে ওই অনলাইন গেমগুলো হ্যাক করা যেগুলো মাইক্রোসফটের ট্রুপ্লে এপিআই ব্যাবহার করছে।

কারন, হ্যাকার যে ডিভাইসটি ব্যাবহার করে গেম খেলবে এবং গেমে চিটিং করার চেষ্টা করবে, সেই ডিভাইসটিতেই মাইক্রোসফটের ট্রুপ্লে অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন রান করছে। এবং যেমনটা বলেছি, এই অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিনটি সার্ভার অরিয়েন্টেড কম এবং সিস্টেম অরিয়েন্টেড বেশি। তাই এটি শুধুমাত্র সার্ভারের দিকেই লক্ষ্য রাখেনা, বরং আপনি গেম খেলার সময় কি কি প্রোসেস রানিং রাখছেন, কোন ধরনের ওভারলে ব্যাবহার করছেন কিনা, আপনি লোকাল গেমস ফাইলগুলোতে কোনরকম কিছু চেঞ্জ করেছেন কিনা এই সবকিছুই লক্ষ্য রাখছে ট্রুপ্লে। তাই স্বভাবতই, একটি শক্তিশালী অ্যান্টি-চিট ইঞ্জিন পিসিতে রান করলে কোন অনলাইন গেমে চিটিং করাটাই আরও কঠিন হয়ে পড়বে, যদি গেমটি ট্রুপ্লে এপিআই ব্যাবহার করে।

ফেসবুক মন্তব্যসমূহ

প্রকাশনাটি শেয়ার করুন

এ জাতীয় আরো পোস্ট